অনলাইনে আছেন

  • জন ব্লগার

  • ৩৪ জন ভিজিটর

সকল পোস্ট (ক্রমানুসারে)

চুরির দ্বায় কি শুধু চোরের একারই...?

লিখেছেন Shahmun ২০১৯-০৪-৩০ ১৮:১৩:৫৫

কয়েকদিন আগে, কোনো এক বই বাঁধাই খানায় গিয়েছিলাম। কাজ শেষ করে ফেরার সময় পরিচিত এক ভাইয়ের সাথে দেখা হয়ে গেল। তিনি একটা প্রকাশনা সংস্থার প্রডাকশন বিভাগে কাজ করেন।   তিনি আমাকে দেখে বাঁধাই খানার ম্যানেজারকে বলল, ‘তোমার লগে আলাদা কথা আছে। বসের সামনে কওয়া যাইবে না!’   তার কথায় আমি হাসলাম এবং বললাম, ‘কী হিস্যা নিয়ে কোনো ঝামেলা হইছে নাকি?’ সে লজ্জা মাখা হাসি দিয়ে বলল, ‘বস, আপনি তো সবই বোঝেন। এইগুলা আর নতুন কী!’   ত...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৩৬১ বার পঠিত     

যেদিন আমরা গরীব হলাম, যখন থেকে লড়তে শিখলাম...

লিখেছেন Nazrul Islam Tipu ২০১৯-০৪-২৯ ২৩:৫৩:৫৬

সময় এখন রাত ১১টা, ২৯ শে এপ্রিল ১৯৯১। বাহিরে প্রবল বাতাস বয়ে চলছে। পুরো দিন গুমোট বাধা পরিবেশ এবং সন্ধ্যার দিকে দমকা হাওয়ার প্রবাহ চলছিল। সন্ধ্যার দিকেই পুরো শহর ফাঁকা হয়ে পড়েছে। রাস্তায় যান বাহন, রিক্সা-টেক্সি নাই্ বললেই চলে। ১০ নম্বর মহা-বিপদ সংকেত ঘোষনা হয়েছে সকাল থেকেই। এখন তার চুড়ান্ত সন্ধিক্ষণ উপস্থিত! ক্ষণে ক্ষণে বাতাস ও পরিবেশের চিত্র পাল্টাচ্ছে। বিদ্যুৎ তারের একে-অপরের সংঘর্ষে বিকট ধ্বনির মাঝে শহরের এক একটি এলাকা অন্ধকারে তলিয়ে যাচ্ছে! ইতিমধ্যে বেশ কয়েটি ট্রান্সফরমার ফেটে যাবার শব্দ শু...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৩৩২ বার পঠিত     

আম্মুর কবরে চাঁদের জ্যোৎস্না......

লিখেছেন লাবিব আহসান ২০১৯-০৪-২১ ০৪:৪১:০৯

চারদিকে নিস্তব্ধ আঁধার। আমি এসে দাঁড়ালাম আম্মুর নীরব কবরটার পাশে। গাছের পাতার ফাঁক গলে জ্যোৎস্নার এক চিলতে আলো এসে পড়েছে কবরের উপরে। মধ্যরাতে আশপাশটা জনমানব শূন্য। কী অদ্ভূত! আম্মু এখানে শুয়ে আছেন প্রায় ৬ বছর ধরে। স্মৃতিরা আমাকে আষ্টে পৃষ্ঠে জড়িয়ে ধরলো। শৈশব, কৈশোর, তারুণ্য; যার আঁচল ছুঁয়ে ছুঁয়ে কেটেছে আমার। কত সুখের দিবস রজনীর জলজ্যান্ত ছবি এই কবর আর গাঢ় অন্ধকারেও আমার হৃদয়ের ক্যানভাসে জাজ্বল্যমান। এই নিস্তব্ধ অন্ধকার আমার পরিচিত, খুব পরিচিত, আমার নিঃশ্বাসের মতোই পরিচিত। যেন এই অন্ধকার বয়ে বেড়া...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৮৬১ বার পঠিত     

তসলিমা নাসরিনের ‘ভোগ তত্ব‘ ও চারদিকের অবাধ যৌনাচার......

লিখেছেন লাবিব আহসান ২০১৯-০৪-২১ ০৪:৩০:০৩

তসলিমা নাসরিন ফেসবুকে বেশ রগরগে একটা স্টাটাস প্রসব করেছেন আজকে। তিনি তার যৌনজীবন সম্পর্কে অকপটে বলেছেন এবং সেটাকে বৈধ করার চমৎকার যুক্তি ব্যবহার করে লিখেছেন, "আমাকে নিয়ে অশিক্ষিত শয়তানেরা বলে অনেক পুরুষ আমাকে 'ভোগ' করেছে। আমি বুঝি না, একবারও কেন ওরা বলে না তসলিমা অনেকগুলো পুরুষকে ভোগ করেছে। এই সমাজে যে ভোগ করে দোষ তার নয়, যাকে ভোগ করা হয়, দোষ তার। আমি তো নিজেকে দোষী মনে করি না। যারা নারী পুরুষের সমান অধিকার চায়, তারা বলতে শুরু করুক, মেয়েরা পুরুষের শরীর ভোগ করে। সত্যি কথা হলো, দু পক্ষই ভোগ করে। ভ...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৬২৪ বার পঠিত     

শ্রমজীবী মহিলা ও তৃতীয় নয়নের উপলব্ধি...

লিখেছেন Nazrul Islam Tipu ২০১৯-০৪-১৮ ২০:৪৪:১০

গার্মেন্টস ফ্যক্টরীতে শ্রমিক হিসেবে মহিলাদের বেশী প্রাধান্য দেওয়া হয়। তারা প্রতিবাদ করে কম, একটু কান্না করে আবার কাজে মনোযোগ দেয়। গ্রুপিং, দলাদলিতে পারদর্শী নয়, তাছাড়া আরো ভাল চাকুরীর সন্ধানে ঘুরার সময়ও পায় না। এসব কারণেই মহিলারা গার্মেন্টেসে চাকুরীর সুযোগ পায় বেশী। সেখানে কাজের খতিয়ান থাকে প্রতি মিনিট হিসেবে। ফাঁকি, গপ্প, খোশালাপের ন্যূনতম সুযোগ সেখানে নাই। পিটের বেকায়দা পূর্ন জায়গায় চুলকানি হলেও, উৎপাদন শ্লথ হবার ভয়ে, হাত চালানোর মওকা নাই। সুপারভাইজার, এসিস্ট্যান্ট, প্রোডাকশন ম্যানেজার, কোয়া...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৫৪৮ বার পঠিত     

আমাদের জীবন বাস্তবতা ও অধ্যাপক আবু সায়ীদ স্যারের চমৎকার বক্তব্য......

লিখেছেন লাবিব আহসান ২০১৯-০৪-১৭ ০৪:৩৪:৩৭

আমি আমার মনোদৈহিক কৈবল্য, মনের দোদুল্যমান জটাজটিলতা নিয়ে ভেবেছি অনেকবার। অন্যদের, আমার আর দশজন ব্যাচমেটের সঙ্গে চিন্তার ঠিক কোন জায়গাটাতে ব্যবধান আমার? এই চিন্তা কিংবা কর্মগত বিস্তর ব্যবধানের অন্তর্নিহিত কারণটা কি? আমি কি এই নতুন পৃথিবীতে অভিযোজিত হতে না পারা পশ্চাতপদ কোনো প্রাণী? কেনই বা তা? আমার স্বাধীন স্বত্তা সারাক্ষণই এই উত্তর খুঁজে ফিরেছে।মার্চের ২৮ তারিখ বাংলাদেশ ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটিতে সমাবর্তন বক্তা হিসেবে বক্তব্য দিয়েছিলেন বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৪৭৩ বার পঠিত     

আমি তোমার তাহাজ্জুদের সঙ্গী হতে চাই.........

লিখেছেন লাবিব আহসান ২০১৯-০৪-০৭ ০৪:২০:৪২

আমি তোমার চোখে চোখ রাখার আবদার করলে, তুমি বাঁধা দিও না।জেনে রেখো,তোমার ঐ চোখে চোখ রাখবো বলে অজস্র চোখ থেকে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করার যুদ্ধ করতে হয়েছে তিরিশ বসন্ত; প্রিয়তমা। তোমার অনামিকা,যেখানে আমাদের বন্ধনটা আমরণ আটকে গেছে, আমি তাতে আশ্রয় চাইলে,তুমি 'না' বলো না।জেনে রেখো, তোমার কোমল অনামিকায় হাত রাখবো বলে অজস্র হাতকেবলিষ্ঠ উদ্যোগে করেছি প্রত্যাখ্যান; প্রিয়তমা। আমি তোমার তাহাজ্জুদের সঙ্গী হতে চাইলে, তুমি ঘুম পাড়িয়ে রেখো না। জেনে রেখো, আমি তোমার শেষ রাতের আরাধনার সঙ্গী হবো...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৫৪৩ বার পঠিত     

রাসূল (সাঃ) এর সংগ্রামী জীবন ও অন্ধের হাতি দর্শনের গল্প.........

লিখেছেন লাবিব আহসান ২০১৯-০৪-০৬ ০৫:২২:৪৮

একদল অন্ধকে হাতি দেখানোর জন্য নিয়ে আসা হয়েছে। তাদেরকে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে রেখে সামনে একটি বৃহদাকার হাতি আনা হলো। অন্ধদের মধ্যে তীব্র কৌতুহল লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তারা রীতিমতো শিহরিত! এবার অন্ধদেরকে হাতি দেখার জন্য ছেড়ে দেয়া হলো। অন্ধদের কেউ গিয়ে হাতির পা ধরলো, কেউ লেজ ধরলো, কেউ শূড় ধরলো, কেউবা ধরলো কান, আবার কেউবা পেট স্পর্শ করলো। দেখা শেষ হলে সব অন্ধকে ডেকে নিয়ে এসে আবার সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করানো হলো। এবার ইন্টারভিউ পর্ব। প্রত্যেককে একই প্রশ্ন করা হলো, “হাতি তুমি কেমন দেখলে?”এবা...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ১৫৮৯ বার পঠিত     

বনানীও কি আমাদের বোধ জাগ্রত করতে পারবে না?

লিখেছেন লাবিব আহসান ২০১৯-০৪-০২ ০২:৩৬:৩৩

আর দশটা সকালের মতোই শুরু হয়েছিলো সকালটা। বিপণী বিতানগুলো সাজিয়ে বসেছিলো তার হরেক পণ্যের পসরা। অফিসের ল্যাপটপগুলোর স্ক্রিনে জটিল সব হিসেব নিকেশ ভেসে উঠছিলো। কী বোর্ডগুলোতে অবিশ্রান্তভাবে শব্দ হচ্ছিলো, "খট খট খট....."। বয়ে চলছিলো সময়ের কাঁটা। সবাই ব্যস্ত নিজেদের কাজ কর্ম নিয়ে। মাথায় হয়তো নতুন দিনের স্বপ্ন ঘুরপাক খাচ্ছিলো, "এবার পল্টনকে গুডবাই বলে দিয়ে গুলশানের দিকে একটা বাসা নিতে হবে। " কিংবা কারো মাথায় ঘুরছিলো গ্রামে আরও বিঘা দুয়েক জমি নেয়ার চেষ্টা। টাকা প্রায় জমে এসেছে। কারো চোখে ভাসছিলো ব্যবসাট...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৫০৮ বার পঠিত     

প্রতিবেশির সম্পর্কটা বড়ই অদ্ভুদ...

লিখেছেন Shahmun ২০১৯-০৩-২৭ ২০:০২:৫৪

প্রায় সন্ধ্যা! পাশের বাড়ি থেকে কান্নার আওয়াজ আসছে। কখনও চিৎকার করে বলছে, ‘কে আছেন, মোক বাঁচাও!’সেই বাড়ির পাশেই ছিল একটা রাইস মিল। সেই রাইস মিলের মালিক কান্নাকাটির আওয়াজ সহ্য করতে না পেরে, সেই বাড়ির দিকে হাটা দিলেন। গিয়ে দেখেন, এক উম্মাদ স্বামী তার বউকে ইচ্ছামত পেটাচ্ছে। রাইস মিলের মালিককে দেখে সেই পাসন্ড স্বামী অভ্যর্থনার হাসি দিয়ে বলল, ‘আরে মহাজন! আপনে আসছেন ক্যান, মোক ডাকলে ত মু-ই গেনু হয়!’মহাজন বললেন, ‘তোর বউয়ের কান্দন শুনি কী আর বসি থাকা যায়! ডাঙ্গাওছিস ক্যান...বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ৪১৭ বার পঠিত     

 নিউজ আপডেট

 এ সপ্তাহের সর্বাধিক পঠিত পোস্ট

 এ সপ্তাহের সর্বাধিক মন্তব্যকৃত পোস্ট

 আর্কাইভ