অনলাইনে আছেন

  • জন ব্লগার

  • ২২ জন ভিজিটর

আফগানী

২৮ জানুয়ারী, ২০১৯ তে নিবন্ধিত

৬৭০ টি ব্লগ পোস্ট লিখেছেন

৬ টি কমেন্টস করেছেন

১১ টি কমেন্টস পেয়েছেন

ব্লগারের লেখা ৩৯১ বার পঠিত হয়েছে

শেষবার লগইন করেছেন ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ তারিখে

বাংলায় মুসলিম শাসনের সুত্রপাত হয়েছিলো যেভাবে

  অনেকেই মনে করেন ইখতিয়ার উদ্দিন মাধ্যমেই এদেশে ইসলাম এসেছে। কথাটা পুরোপুরি ঠিক নয়। বখতিয়ারের বিজয়ের আগেই এদেশে ইসলাম প্রচারক আলেম, দরবেশ ও মুজাহিদগণ জনগণকে সাথে নিয়ে ব্রাহ্মণ্যবাদী সেন-রাজত্বের বিরুদ্ধে নিরন্তর সংগ্রাম পরিচালনা করেন।   ব্রাহ্মণ্যবাদীদের বর্ণবৈষম্য ও শ্রেণিবৈষম্যে নির্য...বাকিটুকু পড়ুন

কুলাউড়া দুর্ঘটনা ও আমাদের করণীয়

  সিলেটের দুঃখজনক ঘটনার জন্য দায়ী কে বা কারা? চলুন উত্তর খুঁজতে দুই বছর আগে ফিরে যাই। সিলেট আখাউড়া রুটে রেল কালভার্ট ও সেতুগুলোতে মেরামতের কাজ হয়েছে। সেই কাজে রেল স্লিপারগুলো স্থানচ্যুত না হওয়ার জন্য ফালি করা বাঁশ স্থাপন করে পেরেক ঠুকে কাজ চালিয়ে দেয়া হয়েছে। সেসময় অনেকগুলো পত্রিকায় এই নিয়ে লেখ...বাকিটুকু পড়ুন

পাল ও সেন আমল : বাংলায় বৌদ্ধদের উত্থান ও কবর রচনা

গত পর্বে আমরা গোপালের নাম নিয়েছি। গোপাল ছিলেন পাল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা। দীর্ঘ এক শতাব্দীর মাৎস্যন্যায় যুগের অবসান ঘটিয়ে আট শতকের মধ্যভাগে গৌড়-বঙ্গ-বিহারে বৌদ্ধ মতাবলম্বী পাল শাসনের সূচনা হয়। পাল শাসনের চারশ’ বছর ছিল এদেশের মানুষের গৌরব পুনরুদ্ধার, আত্ম-আবিষ্কার ও আত্মপ্রতিষ্ঠার যুগ। এ আমলে...বাকিটুকু পড়ুন

রাসূল সা.-এর দৃষ্টিতে খারেজি কারা?

আমাদের প্রিয় রাসুল সা. এর কথা অনুসারে খারেজীদের কিছু বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করার চেষ্টা করবো। এতে আপনারা বুঝতে পারবেন কারা খারেজী হতে পারে। শাব্দিক অর্থে ‘খারেজী’ শব্দটি আরবী ‘খুরূজ’ (الخروج) শব্দ হ’তে এসেছে, যার অর্থ ‘বের হওয়া বা বেরিয়ে যাওয়া’। বহুবচনে ‘খাও...বাকিটুকু পড়ুন

বঙ্গাব্দের শশাঙ্ক, মাৎস্যন্যায় এবং পাল রাজাদের উত্থান

যখন আরবে আল্লাহর রাসূল সা. দাওয়াতি কাজ করছেন তখন আমাদের বাংলায় শাসক ছিলেন শশাঙ্ক। আমাদের আজকের বঙ্গকথা শুরু হবে শশাঙ্ককে দিয়ে। গত পর্বে আমরা গুপ্ত সাম্রাজ্য নিয়ে আলোচনা করেছিলাম। গুপ্ত সাম্রাজ্যের শেষ দিকে এই সাম্রাজ্যের শক্তি দিন দিন ক্ষয় হতে থাকে। একের পর এক এলাকা তাদের হাতছাড়া হতে থাকে। গুপ্ত রাজ...বাকিটুকু পড়ুন

গুপ্তযুগ : শোষণের যে যুগকে স্বর্ণযুগ বলা হয়।

উত্তর ভারতে কুষাণরা ও দাক্ষিণাত্যে সাতবাহন রাজারা কিছুটা রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি স্থাপনে সক্ষম হয়েছিল। কিন্তু খ্রিস্টীয় তৃতীয় শতকের মধ্যভাগে উভয় সাম্রাজ্যের পতন হয়। এর জন্য উল্লেখযোগ্য কারণ হলো শাসকদের ব্যর্থতা ও বৈদেশিক আক্রমণ। এরপর এই অঞ্চলে গুপ্ত শাসন প্রতিষ্ঠা হয়। গুপ্ত সাম্রাজ্...বাকিটুকু পড়ুন

আজ সংবাদপত্রের কালো দিবস

  আজ এমন একটি দিন, আজ থেকে ৪৪ বছর আগে এই দিনে হঠাৎ করেই শত শত সাংবাদিক বেকার হয়ে পড়েছিলো। সেদিন যারা বেকার হয়ে বিপদে পড়েছিলো তাদের মধ্যে আজ অনেকেই বড় বড় হেভিওয়েট সাংবাদিক, সম্পাদক এবং প্রকাশক। কিন্তু, কিন্তু তাদের সাহস নেই অথবা কালের বিবর্তনে আজ তারা স্বৈরাচারের দালালে পরিণত হয়েছে অথবা স্বৈরাচ...বাকিটুকু পড়ুন

কুষাণ সাম্রাজ্য ও বৌদ্ধধর্মের বিকৃতির ইতিহাস

  গত পর্বে সাতবাহন সাম্রাজ্য পর্যন্ত এসেছিলাম। সাতবাহনরা মূলত অন্ধ্রপ্রদেশ ভিত্তিক হিন্দুস্থানের দক্ষিণ অংশে শাসন করতো। তারা বাংলা অধিকার করলেও বাংলায় তাদের ভালো প্রভাব কখনোই স্থায়ী হয়নি। তবে তারা ভারতের দক্ষিণ অংশে বহু বছর শাসন করেছে। এই অংশে যাতায়াতের ভালো সুবিধে না থাকায় বিদেশী কোনো গোষ্ঠীই...বাকিটুকু পড়ুন

বাংলায় ব্রাহ্মণ্যবাদীদের শাসন শুরু হয়েছিলো যেভাবে

গতকাল সম্রাট অশোক পর্যন্ত বলেছিলাম। তিনি ছিলেন মৌর্য্য সাম্রাজ্যের শেষ শক্তিশালী শাসক। তার মৃত্যুর পর মৌর্য্য সাম্রাজ্য ভেঙে যায়। বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন শাসক শাসন করতে থাকেন। বাংলা, বিহার, নেপাল এই অঞ্চল শেষ পর্যন্ত মৌর্য্যদের অধীনে ছিলো। মৌর্য্যদের শেষ শাসক ছিলেন বৃহদ্রথ।   ১৮৫ খ্রিস্টপূর্বা...বাকিটুকু পড়ুন

মৌর্য্য শাসনামলে বাংলাদেশ কেমন ছিলো?

  গতকাল মহাপদ্ম নন্দ পর্যন্ত আলোচনা করেছিলাম। মহাপদ্ম নন্দ দ্রাবিড় জাতির লোক ছিলেন। আর্যদের তিনি বাংলা থেকে তাড়িয়ে দিয়েছিলেন। মহাপদ্ম নন্দ মগধ অঞ্চলের শাসক ছিলেন। মগধ প্রাচীন ভারতে ষোলটি মহাজনপদ বা অঞ্চলের মধ্যে অন্যতম। ষোলটি মহাজনপদের মধ্যে মগধ বেশ শক্তিশালী হয়ে ওঠে। এই রাজ্য বর্তমানের বিহার...বাকিটুকু পড়ুন