অনলাইনে আছেন

  • জন ব্লগার

  • ৩০ জন ভিজিটর

জামায়াত মুসলিমদের কেন দাওয়াত দেয়?

লিখেছেন আফগানী রবিবার ০৫ জুন ২০২২

 

এদেশে তো প্রায় সবাই মুসলিম। তো মুসলিমদেরকে আবার কীসের দাওয়াত দেয় জামায়াত? 

 

জামায়াতে ইসলামের প্রতি এটি একটি কমন প্রশ্ন। এই ব্যাপারে আমাদের কথা হলো আমরা বেসিক্যালি তিনটি বিষয়ে দাওয়াত দেই। 

 

আমাদের দাওয়াতকে সহজ ও সুস্পষ্ট ভাষায় বলতে চাইলে নিম্নলিখিত তিনটি পয়েন্টে বলা যায়।

 

১. আমরা সাধারণত সকল মানুষকে এবং বিশেষভাবে মুসলমানদেরকে আল্লাহর দাসত্ব গ্রহণ করার আহবান জানাই।

 

২. ইসলাম গ্রহণ করার কিংবা ইসলাম মেনে নেওয়ার কথা যারাই দাবী করেন, তাদের সকলের প্রতি আমাদের আহবান এই যে, আপনারা আপনাদের বাস্তব জীবন হতে মুনাফিকী ও কর্ম-বৈষম্য দূর করুন এবং মুসলমান হওয়ার দাবী করলে খাঁটি মুসলমান হতে ও ইসলামের পূর্ণ আদর্শবান হতে প্রস্তুত হোন।

 

৩. মানব-জীবনের যে ব্যবস্হা আজ বাতিলপন্থী ও ফাসিক কাফিরদের নেতৃত্বের আমূল পরিবর্তন করতে হবে এবং নেতৃত্ব আদর্শ ও বাস্তব উভয় ক্ষেত্রেই আল্লাহর নেক বান্দাহদের হাতে সোপর্দ করতে হবে।

 

খেয়াল করুন প্রিয় ভাই, আমরা মুসলিম অথচ আমাদের দেশ ইসলামী বিধান অনুসারে পরিচালিত হয় না। আমরা মুসলিম দাবি করি অথচ আমাদের চরিত্র দেখে সেটা বুঝা যায় না।  এটাই আমাদের আন্দোলনের বেসিক কারণ। 

 

আমরা প্রথমত একজন মানুষকে আল্লাহর পূর্ণ অনুগত হতে আহবান জানাই। এই আনুগত্যের মানে হলো নামজের মধ্যে আমরা যেভাবে আল্লাহকে পূর্ণভাবে মানি সেভাবে সবসময় আল্লাহর অনুগত থাকা। আল্লাহর বিধানকে পুরোপুরি অনুসরণ করা। সকল নিষিদ্ধ কাজ থেকে বিরত থাকা। সকল ফরজ কাজ অবশ্যই করা। 

 

এতটুকু মেনে নেয়ার পর আমাদের দ্বিতীয় আহবান হলো মুনাফিকি তথা কর্মীয় বৈসাদৃশ্য দূর করুন। আপনি যা মানেন তার বিপরীত কিছু দেখলে আপনার শরীরে গা-জ্বালা করাটাই স্বাভাবিক। যদি গা-জ্বালা না করে তাহলে বুঝা যায় আপনার আপনার মেনে নেওয়াটা সঠিকভাবে হয় নি। পর্দা করা ফরজ, বেপর্দা পরিবেশ দেখলে আপনার ঘৃণা হওয়া উচিত, তেমনি সুদ,  ঘুষ, মজুতদারি, জুলুম ইত্যাদিতে আপনার ঘৃণা হওয়া উচিত। যদি ঘৃণা না হয়ে ঐসব কাজে আপনি জড়িত থাকেন তবে এটাই কর্মীয় বৈসাদৃশ্য। 

 

আবার আল্লাহ তায়ালা বিধান দিয়েছেন এবং দায়িত্ব দিয়েছেন সেই বিধান অনুসারে সমাজ/ রাষ্ট / পরিবার পরিচালনা করার জন্য। কিন্তু আপনি এমন একটি সমাজে বাস করেন এখানে ৯০% মুসলিম হলেও সেই সমাজে ইসলাম অনুসারে পরিচালিত হয় না। আপনি আল্লাহকে মানেন, নামাজ-রোজা করেন অথচ সমাজে ইসলাম প্রতিষ্ঠা না দেখেও যদি আপনার অন্তর না পুড়ে তবে এটা মুনাফিকি। আমরা এই মুনাফিকি আচরণ থেকে সরে আসার জন্য আহবান জানাই। আমরা আপনাকে সেভাবে বলতে চাই, আল্লাহ তায়ালা যেভাবে বলেছেন, তোমরা পরিপূর্ণভাবে ইসলামে প্রবেশ করো। 

 

এই সমাজের মুসলিমদের প্রতি আমাদের সর্বশেষ আহবান হলো দ্বীন প্রতিষ্ঠার আহবান। এই সমাজের নেতৃত্ব আমরা এমন লোকদের হাতে তুলে দিতে চাই যারা এই সমাজকে আল্লাহর বিধান অনুসারে পরিচালিত করবে। এজন্য তাকওয়াবান লোকদের আমরা নির্বাচিত করবো আমাদের নেতা হিসেবে। 

 

মুসলিমদের নেতা হবে মুসলিমদের পছন্দ অনুসারে। কেউ জোর করে মুসলিমদের নেতা হলে তার পরিণতি ভালো নয়। আমরা এই সমাজের মুসলিমদের তাদের নেতা বাছাইয়ের সুযোগ করে দিতে চাই। 

 

জোর করে মুসলিমদের নেতা হওয়া জালিমদের ব্যাপারে মুহাম্মদ সা. বলেন, 

 

আলী (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, যে ব্যক্তি কোন কওমের লোকদের অনুমোদন ছাড়াই তাদের নেতা হয় তার উপর আল্লাহ, সকল ফেরেশতা ও মানবকুলের অভিশাপ। তার কোন ফরয বা নাফ্‌ল ‘ইবাদাত আল্লাহর দরবারে কবুল হবে না। [আবু দাউদ ২০৩৪]

  

ইবনু আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত, রসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন, তিন ব্যক্তির সালাত তাদের মাথার এক বিঘত উপরেও উঠে না : যে ব্যক্তি জনগণের অপছন্দ হওয়া সত্ত্বেও তাদের নেতৃত্ব দেয়, যে নারী তাঁর স্বামীর অসন্তুষ্টিসহ রাত যাপন করে এবং পরস্পর সম্পর্ক ছিন্নকারী দু’ ভাই। [ইবনে মাজাহ ৯৭১] 

 

 

আবূ উমামা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেন, “তিন ব্যক্তির নামায তাদের কান অতিক্রম করে না; প্রথম হল, পলাতক ক্রীতদাস; যতক্ষণ না সে ফিরে আসে। দ্বিতীয় হল, এমন মহিলা যার স্বামী তার উপর রাগান্বিত অবস্থায় রাত্রিযাপন করে এবং তৃতীয় হল, সেই জাতির নেতা যাকে ঐ লোকেরা অপছন্দ করে।” (তিরমিযী ৩৬০, সহীহ তারগীব ৪৮৭ নং)

 

এই হচ্ছে আমাদের দাওয়াতের কারণ। আশা করি আপনারা এসব বিষয়ের সাথে একমত হবেন। যারা এখনো জামায়াতে ইসলামীর সাথে যুক্ত হননি তাদের যুক্ত হওয়ার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি। 

 

#গণসংযোগ_পক্ষ


০ টি মন্তব্য      ১২১ বার পঠিত         

লেখাটি শেয়ার করতে চাইলে: