অনলাইনে আছেন

  • জন ব্লগার

  • ৩৮ জন ভিজিটর

একাধিক বিবাহ এবং ইসলাম...

লিখেছেন রূপা মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২
 
একবার এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে, খাবারের টেবিলে একজন মালয়সিয়ান ইসলামিক স্কলার বললেন - ইসলামে পুরুষদের জন্য একের অধিক বিবাহ কখনোই বৈধ নয়,আমি সেটা প্রমান করে দিব। প্রথমে মনে মনে ভাবলাম, এটা কিভাবে তিনি করে দিবেন ! তাকে বললাম, আপনি দৃঢ়ভাবে নিশ্চিত যে প্রমান করে দিবেন ? সে বললো, আমি পুরোপুরি নিশ্চিত এবং কুরআন থেকে প্রমান করে দিব। জিজ্ঞাসা করলাম, কিভাবে ? তিনি বললেন - কুরআন একটি আয়াতে স্পষ্ট বলছে যে পুরুষরা একাধিক বিয়ে করলে নারীদের সমান অধিকার দিতে পারবে না,
ولن تستطيعوا أن تعدلوا
আর আগেই স্পষ্ট বলা আছে যে সমান অধিকার দিতে না পারলে কেবল একটি বিয়েই করতে পারবে, তো প্রমান হয়ে গেল !
.
কতটা বিকৃত তাদের মন ভেবে অবাক হলাম। তারা যেটা বলছে সেটা যদি সত্যি হয় তাহলে সাহাবীরা কেউই কুরআনের আয়াত অনুসরণ করেননি ! আবু বকর সিদ্দিকের একের অধিক স্ত্রী ছিল। উমরের একের অধিক স্ত্রী ছিল। উসমানের একাধিক স্ত্রী ছিল। আলীর অনেক স্ত্রী ছিল। রাদিআল্লাহু আনহুম। তারা কেউই কুরআন মানেননি ! আর হাসান রাদিআল্লাহু আনহু, তিনি তো সব মিলিয়ে এই পৃথিবীর সত্তরজন নারীকে বিবাহ করেছেন (একই সাথে তাঁদের (রাঃ) ৪ এর অধিক ছিল না)। তো এই মানুষরা, তারা কখনোই কুরআন বুঝলো না। কুরআনের আয়াত মেনে চললো না ! কিভাবে তারা তাহলে এত ভাল মুসলিম হিসেবে গন্য হল ?
আবার কুরআন বলছে,
وأن تجمعوا بين الأختين
আল্লাহ একই পরিবারের দুই বোনকে একত্রে বিয়ে করতে নিষেধ করছেন। একসাথে দুই বোনকে স্ত্রী হিসেবে রাখা যাবে না বলছেন। যদি ইসলামে দুটি স্ত্রীর বৈধতা না-ই থাকে তাহলে আল্লাহ তায়ালা এভাবে শুধু শুধু কেন উল্লেখ করছেন ? এগুলো বলার তো মানেই হয় না। যেহেতু আপনাদের ব্যখ্যা অনুযায়ী একটাই বিয়ে করা যাবে। আসলে কথা হচ্ছে আপনারা অন্য কোথাও থেকে জ্ঞানের রসদ জমা করছেন, আর কুরআনকে ব্যবহার করছেন আপনাদের সেই ধারনা প্রমান করতে। কুরআন থেকে আপনারা নিচ্ছেন না, বরং অন্য কোন উৎস থেকে নিচ্ছেন। আপনাদের ধারনা সংগ্রহিত হচ্ছে " ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস ল " এর নির্দিষ্ট কিছু বুঝ থেকে। হিউম্যান রাইটসের এসব নিয়ম কানুন পড়ে, দেখে আপনারা নিজেদের আধুনিক,প্রগতিশীল মনে করেন আর ভাবেন - কুরআন কিভাবে হিউম্যান রাইটস বিরোধী হতে পারে! আর তারপর আপনি জোর করে কুরআনের ব্যখ্যা যাতে হিউম্যান রাইটসের আইনকে সাপোর্ট করে প্রমান করতে লেগে যান। কিন্তু কুরআন তো এই উদ্দেশ্যে আসেনি। কুরআন হচ্ছে গাইডেন্স, এটি হিউম্যান রাইটস থেকে তথ্য নিয়ে চলে না। কুরআনের উৎস সৃষ্টিকর্তা, মানুষ নয়।
.
কুরআন পড়ুন। এটি কোন রহস্য নয়। খুবই পরিষ্কারভাবে কুরআন সবকিছুর বর্ণনা করে। একেবারে স্পষ্ট।
অন্যত্র কুরআন রাসুলকে বলছে,
قل لازواجك
" তোমার স্ত্রীদের বল "
অর্থ্যাৎ রাসুলের অবশ্যই একের অধিক স্ত্রী আছে। স্পষ্ট। এছাড়াও কুরআন অন্য মানুষদের, নবীদের স্ত্রীদের ব্যাপারে সর্বত্র উল্লেখ করছে। এটা কোন গোপন কিছু না যে কুরআন পুরুষদের একের অধিক স্ত্রী রাখতে অনুমতি দেয়। বরং এটি তো সাহাবিদের সুস্পষ্ট ইতিহাস ! আপনি এমন সাহাবী হয়তো পাবেনই না যার কেবল একটি স্ত্রী ছিল।
আব্দুল্লাহ ইবনু আব্বাস রাদিআল্লাহু আনহু বলতেন, “ এই উম্মতের সর্বোত্তম পুরুষ তারাই যাদের একের অধিক স্ত্রী ছিল। ” বলুন আব্দুল্লাহ ইবনু আব্বাস থেকে কুরআনের অধিক বুঝ ছিল কয়জনের ? তিনি এভাবেই বলতেন।
.
আপনি বলতে পারেন যে একের অধিক বিবাহ, এই ধারনাটি আমার পছন্দ নয়। অবশ্যই বলতে পারেন, সমস্যা নেই। কিন্তু এভাবে বলবেন না যে, এটি কুরআনে নেই । এটি অবশ্যই কুরআনে আছে । দেখুন, হয় এই কুরআন ঠিক যেমনভাবে আছে গ্রহন করুন অথবা কুরআন ছেড়ে দিন ! আমরা কাউকে জোড় তো করছি না। বলে দিন যে আমরা কুরআন পছন্দ করি না কারন এটি একাধিক বিবাহের পক্ষে বলে, আমরা হিউম্যান রাইটস ল অনুসরণ করি, এটি আমরা মেনে নিতে পারি না। কোন সমস্যা নেই! মানুষ তাঁর নিজের পছন্দে স্বাধীন। যা ইচ্ছা মেনে চলতে পারে। কিন্তু বলবেন না যে কুরআনের শিক্ষাই এমন। দয়া করে কুরআন বিকৃত করবেন না। কারন কুরআন এ কথা বলে না।
..
শাইখ মুহাম্মদ আকরাম নদভী

ইসলাম বহুবিবাহ
০ টি মন্তব্য      ২৩৬ বার পঠিত         

লেখাটি শেয়ার করতে চাইলে: