অনলাইনে আছেন

  • জন ব্লগার

  • ৩৫ জন ভিজিটর

বাঙালের পুড়ে মরার জন্য বাঙাল নিজেই দ্বায়ী।

লিখেছেন Shahmun শনিবার ০৬ এপ্রিল ২০১৯
সিফাত উল্লাহ সেফুদা! সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই নামটি ব্যাপক আলোচিত এবং সমালোচিত নাম। আমি সিফাত উল্লাহকে নিয়ে কিছু বলতে চাই না। তবে সিফাত উল্লাহর বলা একটি কথাকে উল্লেখ করতে চাই। সিফাত উল্লাহ বলেন, ‘ইশ! কেন যে বাঙাল হয়ে জন্মেছিলাম। এই জাতির চেয়ে নিকৃষ্ট জাতি আর একটিও নেই।’
 
সিফাত উল্লার কথা নিয়ে সবাই হাসাহাসি করলেও, সিফাত উল্লাহর এই কথার সাথে আমি একমত। কারণ, এই জাতি ‘শর্ট টার্ম মেমরি লস’ জাতি। দেশের কোনো একটি ঘটনা ঘটার পরপরই পূর্বের ঘটনার সবকিছু ভুলে যায়। আর নতুন ঘটনার অপ্রসাঙ্গিক কোনো উপসর্গকে নিয়ে মেতে ওঠে। প্রায় ঘটনায় কাউকে না কাউকে নায়ক বানিয়ে মূল ঘটনা থেকে সরে পড়ে।
 
যেমন, বনানীর এফ আর টাওয়ারে আগুন লেগে ২৬ জন মানুষ মরে গেল, তা নিয়ে বাঙালীর কোনো মাথাব্যাথা নেই। বাঙালী সেই ঘটনায় খুঁজে পেয়েছে নাঈম নামক এক বালককে। যেকিনা আগুন লাগার
সময় পাইপ চেপে ধরে বসেছিল। বাঙালী তাদের নায়ককে খুঁজে পেল। নায়কের জন্য সুদূর প্রবাস থেকে ঘোষণা এল তার জন্য ৫০০০ ডলার পুরষ্কার ঘোষণা করা হয়েছে। এদিকে আমাদের ফায়ার সার্ভিসের উন্নত মানের মেশিন নেই, কেনার জন্য প্রয়োজনীয় বাজেট নেই সেদিকে বাঙালের নজর নেই।
 
সে যাই হোক, বাঙাল মিডিয়া নাঈমকে নিয়ে মাতামাতি শুরু করে দিল। এই মাতামাতির সুযোগে অভিনয়ে ভাত না পাওয়া শাহরিয়ার নাজিম জয় তার ইউটিউব চ্যানেলের জন্য একটি সাক্ষাৎকার গ্রহণ করে। সেখানে এই শিশু নাইম বলে, সে পুরষ্কার পাওয়া এই টাকাগুলো গ্রহণ করবে না; এতিম খানায় দান করে দিবে। কারণ, কিছুদিন আগে খালেদা জিয়া এতিমদের টাকা মেরে খেয়েছে তাই।’
 
এটি যে শিখানো কথা, তা বুঝতে খুব বেশি কষ্ট হওয়ার কথা নয়। তারপরও বাঙাল যে এর সত্যতা নিরুপনের জন্য উঠে পড়ে লেগেছে তা দেখেই আমার মনে হয়েছে, আমার জয় এবং ডিজিএফআইয়ের পরিকল্পনার বিজয় হয়েছে।
 
দেশে যখন কোনো বিশেষ দূর্ঘটনা ঘটে তখন সরকারী গোয়েন্দাবাহিনি স্বাভাবিকভাবেই সেই ঘটনাকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্য নতুন কোনো ঘটনার উদ্ভব ঘটায়। প্রবাসীর ৫০০০ ডলার পুরস্কারের ঘোষণা গোয়েন্দাবাহিনির হাতে বনানীর আগুনের ঘটনাকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্য একটি সুযোগ তৈরী করে দেয়। আর সেই সুযোগের পথ দেখিয়ে দেয়, শাহরিয়ার নাজিম জয়।
 
তারপর বাঙাল বনানীর ২৬ জন নিহত মানুষের কথা ভুলে এক নাইমের পিছনে ছুটতে শুরু করল। বনানীর আগুনে আহত হওয়া অর্ধশতাধিক মানুষের কথা ভুলে, এফ আর টাওয়ারের মালিকদের সাথে রূপায়ন গ্রুপের চেয়ার‌ম্যানকে কেন গ্রেফতার করল না, সেদিকে লক্ষ্য না রেখে তারা নজর রাখল নাইমের উপর। নাইম কি আদৌও ৫০০০ ডলার পাবে!
 
সত্যিই এই জাতির মত নির্বোধ, বোকা এবং অধর্ব জাতি পৃথিবীতে আর একটিও আছে বলে মনে হয় না। বাঙালের পুড়ে মরার জন্য বাঙাল নিজেই দ্বায়ী।

আগুন
০ টি মন্তব্য      ৩৩১ বার পঠিত         

লেখাটি শেয়ার করতে চাইলে: