অনলাইনে আছেন

  • জন ব্লগার

  • ৩৩ জন ভিজিটর

আবহমান কালের ইসলামী সংস্কৃতি আর এই সময়ে বিভিন্ন গায়ক-কবিদের গান-কবিতায় প্রচলিত ইসলামী সংস্কৃতি এক নয়।

লিখেছেন Khomenee Ehsan বৃহস্পতিবার ০৪ এপ্রিল ২০১৯

আবহমান কালের ইসলামী সংস্কৃতি আর এই সময়ে বিভিন্ন গায়ক-কবিদের গান-কবিতায় প্রচলিত ইসলামী সংস্কৃতি এক নয়। এরা ইসলামী সংস্কৃতির নামে আধুনিকতার চর্চা করে। এখন আধুনিকতা বলতে আপনি কী বুঝবেন, প্রাগ্রসরতা না পশ্চাদপদতা? হাহাহা... বহু বেকুব প্রগতিশীলই জানেন না বোঝেন না একুশ শতকেরও অনেক আগে আধুনিকতা পশ্চাদপদ বলে খারিজ হয়ে গেছে। এটি হয়েছে পশ্চিমা দার্শনিক ও বুদ্ধিজীবীদের হাতেই। তার উত্তর আধুনিক, উত্তর উত্তর আধুনিক চিন্তা-দর্শনের বিকাশ ঘটিয়েছেন। যার ফলে অনেক আধুনিক চিন্তাই পরিত্যক্ত হয়ে গেছে। এখন মুশকিলটা দেখেন ইসলামী সংস্কৃতিঅলারা আটকে আছেন আধুনিকতায়। এর মধ্যে বিজ্ঞানবাদী মুসলিম পণ্ডিত, ওয়ায়েজীনদের অবস্থা সবচেয়ে হাস্যকর। এরা মূলত উনবিংশ শতকের আগের খৃস্টান প্রচারকদের মত বিজ্ঞান দিয়ে ইসলামকে বুঝে থাকেন। যাই হোক ইসলামী সংস্কৃতি অলাদের প্রশ্নে আসি। একজন কবির নাম দেখলাম 'জাগ্রত কবি', এর মানে কী? তাদের গানের লিরিকগুলো আধুনিকতার বয়ান ছাড়া আর কী? রবীন্দ্রভাষায় আধুনিকতার চর্চা। সম্ভবত ষাটের দশকের আধুনিকতাবাদী বামদের মন তাদের মধ্যে আছর করছে। আমি চেষ্টাগুলোর প্রতি শ্রদ্ধাশীল। কিন্তু ১৪শ' বছরের ইসলামের যে দার্শনিক-রাজনৈতিক উচ্চতা তার আলোকে নিজেদের চিন্তাভাবনার স্তর ও মান যাচাই না করে জনমনের আবেগের সুযোগ নেওয়া হীন মানসিকতা। জনগণের মধ্যে ইসলামের প্রতি গভীর অনুরাগ আছে বলেই আপনি জেগে কবি সাজবেন না। আমাদের কবি রুমি জামি হাফিজ গাঞ্জেশকর বুল্লেশাহ আমীর খসরু আলাওল নজরুল ফররুখের মতো মানুষ। তাদের বিচারে দেখুন শিল্পমানহীন একদলা উত্তেজনা ছড়ানো হচ্ছে শুধু। যদি মুসলিম জাতীয়তাবাদও চর্চা হয়, তাহলেও অন্তত কাসীদার প্রতি নজর ফিরিয়ে তারা ভালো কিছু তৈরি করে নিতে পারে। আমীন।


সংস্কৃতি
০ টি মন্তব্য      ৩৬০ বার পঠিত         

লেখাটি শেয়ার করতে চাইলে: