অনলাইনে আছেন

  • জন ব্লগার

  • ২৭ জন ভিজিটর

আপাত ভালো কাজের প্রশংসা, সমর্থন শুধু ইতিবাচক মনের পরিচয় দেয় না, কিছু ক্ষেত্রে নোংরা মানসিকতা ও কুপমুন্ডকতারও পরিচয় দেয়

লিখেছেন অদ্রি হাসান সোমবার ০১ এপ্রিল ২০১৯

কোন ব্যক্তি, দল বা সংগঠনের ভালো কাজের প্রশংসা, সমর্থন ও সহযোগিতা যেমন আমাদের  ইতিবাচক মনের পরিচয় দেয়, এমনকি কিছু ক্ষেত্রে তা নোংরা মানসিকতা ও কুপমুন্ডকতারও পরিচয় দেয়।

১। ব্যক্তি পর্যায়:

তিনি ভালো লিখেন, সুন্দর বক্তব্য দেন ও যোগ্যতা সম্পন্ন তাই আমরা তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ, কিন্তু তিনি তার ভালো লিখা,  সুন্দর  বক্তব্য ও যোগ্যতা দিয়ে এমন কারো জন্য জনসমর্থন তৈরি করেন, যারা নিরপরাধ মানুষ হত্যা করে, ধর্ষণের পৃষ্ঠপোষকতা করে ইত্যাদি। তাহলে তার আপাত যোগ্যতার প্রশংসা, সমর্থন আমাদের নোংরা মানসিকতা ও কুপমুন্ডকতার পরিচয় দেয়।

 

২। সমাজ বা গ্রাম পর্যায়:

একজন জনপ্রতিনিধি তিনি মানুষের উপকার করেন, মানুষকে খাওয়ান ও সুন্দর কথা বলেন, বাঙ্গালের রুচি অনুযায়ী বক্তব্য দিতে পারেন। তাই আমরা তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ, তাকে সিমর্থন দিই, কিন্তু তিনি এই সমর্থন দিয়ে মানুষের জমি দখল করেন, ধর্ষণ করে বেড়ান। তাহলে তার আপাত ভালো কাজের প্রশংসা ও সমর্থন আমাদের নোংরা মানসিকতা ও কুপমুন্ডকতার পরিচয় দেয়। কেন?

কারণ আপনার প্রশংসা ও সমর্থনের কারণে তার ক্ষমতা, প্রতিপত্তি দীর্ঘস্থায়ী হয়, আপনি তার অপকর্মকে দীর্ঘস্থায়ী করতে চেতনে-অবচেতনে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

 

৩।জাতীয় পর্যায়:

একটি সরকার (গণতান্ত্রিক, স্বৈরতান্ত্রিক বা পরিবারতান্ত্রিক সে যে নামেই হোক) অর্থনৈতিক উন্নয়ণ সাধান করেন, অবকাঠামোগত উন্নয়ণ করেন, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ণ করেন ও দেশকে প্রযুক্তিতে সম্মৃদ্ধ করেন, ধর্মীয় স্বাধীনতা প্রদান করেন, তাই আমরা তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ, তাকে সমর্থন দিই, কিন্তু সে সরকার জনগণের প্রতি জুলুম করেন, বিনা বিচারে মানুষ হত্যা করেন, নিরপরাধ মানুষকে জেলে পুরে, ধর্ষণের পৃষ্ঠপোষকতা করে ও মানুষের অধিকার হরণ করে।  তাহলে তার আপাত ভালো কাজের প্রশংসা ও সমর্থন আমাদের নোংরা মানসিকতা ও কুপমুন্ডকতার পরিচয় দেয়। কেন?  

 

কারণ আপনার প্রশংসা ও সমর্থনের কারণে তার ক্ষমতা, প্রতিপত্তি দীর্ঘস্থায়ী হয়, আপনি তার অপকর্মকে দীর্ঘস্থায়ী করতে চেতনে-অবচেতনে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। আপনি তাকে নিরপরাধ জনগণ হত্যা করতে, ধর্ষণ করতে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন; হয়তো আপনি আমি তা জানিও না যে আমারই সমর্থন অপকর্মকে বৈধতা দিচ্ছে, দীর্ঘস্থায়ী হতে সহায়তা করছে। জেনে করলে সেটা নোংরা মানসিকতা আর না জেনে করলে সেটা  কুপমুন্ডকতা; দু’টিই পাপ।

 

 

 

আমার এতটুকু বক্তব্যের পর অভিযোগ আসতে পারে যে, আমি নিকোলো মেকিয়াভেলি  "The end justifies the means." তত্ত্বের আলোকে কথা বলছি কিনা। the ends justifies the means এর আক্ষরিক অর্থ হলো মাধ্যমকে পরিণতি ও ফলাফল বৈধতা দেয়। মানে আপনি যে উপায়ে কাজ করেন তাতে সমস্যা নেই, মূল লক্ষ্য ঠিক থাকলে চলবে। মানে আপনার উদ্দেশ্য ভালো তাই আপনি জনগণের সাথে মিথ্যা কথা বলতে পারেন, তাদের মহৎ উদ্দেশ্যে প্রতারিত করতে পারেন, দেশের বৃহত্তর স্বার্থে আপনি মানুষকে জিজ্ঞাবাদের নামে অত্যাচার করতে পারেন; এতে সমস্যার কিছু নেই। এটা আমার অবস্থান নয়, এটা নিকোলো মেকিয়াভেলির বক্তব্য। যদিও অনেকে বলেন মেকিয়াভেলি ঠিক এ কথাটি বলেননি, এর কাছাকাছি বলেছেন, কিন্তু তার bad-boy attitude’র কারণে মানুষ এটা  তার নমে চালিয়ে দিয়েছে। আমি "The end justifies the means."  থিওরিরও বিরোধী, ক্ষেত্র বিশেষ এটা পূর্বেরটার চেয়েও ভয়ংকর হতে পারে।

 

 

আমার প্রতি আরো একটা ধারণা তৈরি হতে পারে যে আমি

Consequentialism এর সমর্থক কিনা! Consequentialism হল

প্রত্যেকটা কাজের ফলাফল হল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ, উপায় বা মাধ্যম তত গুরুত্বপূর্ণ নয়। এটা উপরিউক্ত থিওরির সিস্টেমেটিক এক্সপ্লানেশন বলা যেতে পারে, সুতরাং আমি এরও সমর্থক নই।

 

আমি যা সমর্থন তাহল তিনটি মাধ্যমের পবিত্রতা আবশ্যক, এই তিনটিকে মাথায় রেখে কারো প্রশংসা কিংবা নিন্দা করতে হবে। তাহল-

১। উদ্দেশ্যের বা ফলাফলের পবিত্রতা

২। উপায় বা মাধ্যমের পবিত্রতা

৩। চারিত্রিক পবিত্রতা।

এর কোন একটি অনু্পস্থিত থাকলে, সেটা জাতির জন্য কল্যাণকর কিছু বয়ে আনবে না এবং তার প্রশংসা ও সমর্থন আমাদের নোংরা মানসিকতা ও কুপমুন্ডকতার পরিচয় দিবে।


আপাত ভালো কাজের প্রশংসা "The end justifies the means." Consequentialism
০ টি মন্তব্য      ৩৬০ বার পঠিত         

লেখাটি শেয়ার করতে চাইলে: